সন্ত্রাসবাদের নেপথ্য কারণ রাষ্ট্রের দায়িত্বহীনতা: করবিন

139

ওয়ানবাংলানিউজ ডেস্ক: যুক্তরাজ্যের বিরোধী দলীয় নেতা জেরেমি করবিন বলেছেন, অপরাধীদের পূর্ণাঙ্গ মেয়াদ পর্যন্ত কারাবন্দি রাখলেই সন্ত্রাসবাদের বিস্তার থামানো যাবে না। এজন্য কারা-ব্যবস্থাপনায় সংস্কার আনতে হবে। লন্ডনের সাম্প্রতিক হামলা প্রসঙ্গে স্কাই নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি সন্ত্রাসবাদের নেপথ্য কারণ হিসেবে রাষ্ট্রের দায়িত্বহীন ভূমিকাকে দায়ী করেছেন। করবিনের মতে, নিরাপদ সমাজ গড়ে তোলা, যথাযথ গণতান্ত্রিক ও মানবিক অধিকার নিশ্চিতের মধ্য দিয়েই সন্ত্রাসের বিস্তার রোধ করতে হবে। ব্রিটিশ বাংলাদেশি শামীমা বেগমের মতো কথিত আইএস তরুণীদের রাষ্ট্রহীন করার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে তিনি বলেছেন, ব্রিটিশ সরকারেরই তাদের দায়িত্ব নেওয়া উচিত ছিলো।

শুক্রবার স্থানীয় সময় রাতে লন্ডন ব্রিজের উত্তরের অংশে ছুরি নিয়ে কয়েক ব্যক্তির ওপর হামলার পর পুলিশের গুলিতে সন্দেহভাজন হামলাকারী নিহত হয়। ছুরিকাঘাতে নিহতদের একজন পুরুষ ও অপরজন নারী। লন্ডন পুলিশ স্ট্যাফোর্ডশায়ারের বাসিন্দা ২৮ বছর বয়সী পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক উসমান খানকে হামলাকারী হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

২০১০ সালের লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে হামলার ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত হয়ে উসমান ২০১২ সালে ১৬ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছিল। তবে সে দেশের বিদ্যমান বিধি অনুযায়ী পূর্ণাঙ্গ মেয়াদে সাজা ভোগের আগেই ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে মুক্তি পায় সে। লন্ডন ব্রিজের হামলার পর সেই প্রসঙ্গ সামনে এলে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, কেউ সন্ত্রাসী অপরাধে অভিযুক্ত হলে (আইন অনুযায়ী) তাকে পূর্ণ দণ্ড সাজা ভোগ করানো উচিত। তবে করবিন মনে করছেন, সেটার ‘কোনও প্রয়োজন নেই।’

স্কাই নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে করবিন বলেছেন, কাউকে আগাম মুক্তি দেওয়া যাবে কিনা, সেই সিদ্ধান্তটা দণ্ড ভোগ করার সময় কারাগারে অপরাধীর কর্মকাণ্ড ও সার্বিক পরিস্থিতির বিবেচনায় নির্ধারিত হওয়া উচিত। তিনি বলেছেন, আমাদের কারা পরিষেবাগুলো অপরাধীর ক্ষেত্রে কেমনভাবে কাজ করছে আর কারাগার থেকে বের হওয়ার পর তাদের সঙ্গে কী ঘটছে এসব বিষয় বিবেচনায় নেওয়া জরুরি।

করবিন মনে করেন, রাষ্ট্রীয় অর্থায়নে যথাযথ কারা-পরিষেবার অনুপস্থিতিই অপরাধীকে সংশোধিত হওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করে। উসমান প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘সম্ভবত এই সাবেক কয়েদির পর্যবেক্ষণে কোনও নীরিক্ষামূলক পরিষেবা ছিল না।’

সোফি রিজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে করবিন বলেছেন, ‘কারাগারে অপরাধীরা কেমন আচরণ পাচ্ছে, তা খতিয়ে দেখা উচিত।’ তার মতে কারাগার কেবলমাত্র মারাত্মক অপরাধীদেরকে বিচ্ছিন্ন করে রাখার স্থান হবে না, অপরাধীদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে দেওয়ার দায়িত্বও নেবে।

স্কাই নিউজের সাক্ষাৎকারে শামীমা বেগমসহ সিরিয়ার কথিত আইএস কন্যাদের নাগরিকত্ব বাতিলের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন করবিন। তিনি প্রশ্ন তুলেছেন, ‘যদি তাদের নাগরিকত্ব বাতিল করা হয়, তাহলে তারা কোথায় যাবে?’ করবিন বলেন, সিরিয়ার একাংশ ও লিবিয়ার মতো প্রশাসনবিহীন/সরকারহীন এলাকাগুলোতে এই রাষ্ট্রহীন হতে যাওয়া মানুষগুলো ঘুরতে থাকলে আগামী দিনে আইএস বা এর মতো অন্য সন্ত্রাসী বাহিনী সৃষ্টি করবে তারা। করবিনের মতে, ‘নিশ্চিতভাবে যে কেউ কোনও একটি রাষ্ট্রের নাগরিক হবে। ওই রাষ্ট্রই তাদের দায়িত্ব নেবে।’

সাক্ষাৎকারে মানবাধিকার রক্ষার পক্ষে জোরালো অবস্থান নেন করবিন। বলেন, আপনাকে অবশ্য একটি নিরাপদ সমাজ নির্মাণ করতে হবে এবং একই সময়ে মানবাধিকার রক্ষাও নিশ্চিত করতে হবে।