লাইম হাউজ ও পপলার আসনকে নারীদের জন্য সংরক্ষিত করায় স্থানীয় লেবার সদস্যদের ক্ষোভ, সিদ্ধান্ত প্রত্যারের দাবী

186

এম এ জামান: বাঙ্গালী অধ্যুষিত লাইম হাউজ ও পপলার সংসদীয় আসনে লেবার দলীয় প্রার্থী চয়ন প্রক্রিয়া নিয়ে শুরু  হয়েছে লুকোচুরি খেলা। দীর্ঘদিন থেকে এই আসনে লেবার পার্টির প্রার্থী বিজয়ী হয়ে আসছেন। এ আসনের বর্তমান এমপি লেবার পার্টির জিম ফিজ পেট্রিক টানা ৬ মেয়াদে হাউজ অব কমন্সে প্রতিনিধিত্ব করছেন। তিনি আগামী জাতীয় নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করার ঘোষণা দিলে এ আসনে আরেকজন বাঙ্গালী এমপি নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়।

সম্প্রতি লেবার পার্টির এনইসি স্থানীয় লেবার পার্টিকে অন্ধকারে রেখে টাওয়ার হেমলেটসের পপলার ও লাইম হাউস আসনকে লেবার পার্টির নারী অসন হিসেবে ঘোষণা দেয়। স্থানীয় লেবার পার্টির নেতা কর্মীরা লেবার পার্টির এনইসি’র এ সিদ্ধান্তকে মেনে নিতে পারেনি। তাই এই আসনের বিএএমই সদস্যরা মিলিত হন এক প্রতিবাদ সমাবেশে। সমাবেশে বক্তারা এনইসি’র এই সিদ্ধান্তকে অগণতান্ত্রিক আখ্যায়িত করে সকল নেতা কর্মীদের নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অধিকার পুনর্বহাল করার জোর দাবী জানান।

গত ২২ অগাস্ট বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় শ্যাডওয়েলের একটি সেন্টারে এই প্রতিবাদ সভা মামুনুর রশীদের সভাপতিত্ত্বে এবং রুহুল আমিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব‍্য রাখেন সাবেক কাউন্সিল লিডার হেলাল উদ্দিন আব্বাস, টাওয়ার হেমলেটস কাউন্সিলের স্পীকার ভিক্টোরিয়া ওবাজি, সাবেক স্পিকার কাউন্সিলার আয়াছ মিয়া, কাউন্সিলার পুরু মিয়া, কাউন্সিলার ইশতেহাম, কেবিনেট মেম্বার কাউন্সিলার সাবিনা আক্তার , কাউন্সিলার শাহ সোহেল আমিন, কাউন্সিলার কাহার চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন সাবেক জিইসি সেক্রেটারী আফসানা বেগম, বারিষ্টার আবু সূফিয়ান চৌধুরী, ছানু মিয়া সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। প্রতিবাদ সভায় কাউন্সিলার এহতেশাম এই অগণতান্ত্রিক সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করে মোমেনটাম গ্রুপ থেকে পদত্যাগের হুমকি দেন। তবে সাবেক জিইসি সেক্রেটারী আফসানা বেগম সল্প সময় উপস্থিত থেকে সভাস্থল ত্যাগ করেন। তার সাথে মুটো ফোনে যোগাযোগ করা হলে সংস্লিষ্ট বিষয়ে মন্তব্য করতে অপারগতা প্রকাশ করেন।