মামিকে ধর্ষণ করতে গিয়ে ভাগ্নে খুন

56

ঢাকা সংবাদদাতা: চাঞ্চল্যকর সাকিব (২১) হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটন ও মূল ২ আসামি বিলকিস আক্তার বানু ও তার ছেলে বিপ্লব হোসেনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ঈশ্বরদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জহুরুল হক ও ঈশ্বরদী থানার ওসি বাহা উদ্দিন ফারুকীর নেতৃত্বে সোমবার শহরের অরনকোলা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশের কাছে ও আদালতে তারা সাকিব হত্যার বিষয়টি স্বীকার এবং মূল ঘটনা প্রকাশ করেন। সোমবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন ঈশ্বরদী থানার ওসি বাহাউদ্দিন ফারুকী। অপর আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

আসামিদের দেয়া তথ্যে জানা গেছে, ঈশ্বরদীর চকনারিচা বাগবাড়িয়া গ্রামের আলমগীরের ছেলে সাকিব। তার কুদৃষ্টি ছিল মামি বিলকিস আক্তার বানুর দিকে।

সে প্রায়ই তার মামিকে কুপ্রস্তাব দিত। ২৫ মে রাতে মামা বাড়িতে না থাকার সুযোগে সাড়ে ১২টার দিকে মামি বিলকিস আকতারকে ডাকে সাকিব। এতে বিলকিস দরজা খুলে দেন।

ভেতরে ঢুকেই সাকিব মামিকে কুপ্রস্তাব দেয়। বিলকিস রাজি না হলে সাকিব শক্তি প্রয়োগ করে। এ সময় দু’জনের ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে বিলকিস তার ছেলে বিপ্লবকে ডাকে। মায়ের বিপদ অনুমান করে বিপ্লব আরও ৪-৫ জনকে সঙ্গে নিয়ে মায়ের ঘরে গিয়ে সাকিবকে জাপটে ধরে।

তারা বালিশচাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে সাকিবকে হত্যা করে স্থানীয় সাখাওয়াতের বাড়ির পাশে লাশ ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ ময়নাতদন্তে পাবনা হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। ওইদিনই মামলা হয়।