“দায়িত্বশীল নাগরিক সমৃদ্ধ দেশ” স্লোগানে দোহায় সেন্টার ফর এনআরবির আন্তর্জাতিক সেমিনার অনুষ্ঠিত

154

ওয়ানবাংলানিউজ: বাংলাদেশ ও কাতারের মধ্যে আর্থ-সামাজিক খাতে চমৎকার সম্পর্ক বিরাজ করছে। আর দুটি বন্ধু প্রতীম দেশের মধ্যে সম্পর্ক ও যোগাযোগ বিকাশে কাজ করছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন কাতার প্রবাসী বাংলাদেশীরা।
গত বৃহস্পতিবার ২ এপ্রিল সেন্টার ফর এনআরবি আয়োজিত ওয়ার্ল্ড কনফারেন্স সিরিজ-২০১৯ এর কাতার সম্মেলনে এসব কথা বলেন, কাতারে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্টদূত আসুদ আহমদ।
সেন্টার ফর এনআরবির চেয়ারপারসন এম.এস সেকিল চৌধুরীরর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, বাংলাদেশের ব্যক্তিখাত ও ব্যবসায়ীরা সংস্কৃতি, খেলাধুলা, স্বাস্থ্য ও টুরিজমখাতে আরো যোগাযোগ বৃদ্ধিতে কাজ করতে পারে। সমৃদ্ধ দেশ কাতার এসব খাতে গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

কাতারের দোহায় একটি হোটেলে আয়োজিত সম্মেলনে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন ঢাকা চেম্বার্স অব কমার্সের সাবেক সভাপতি মো. সবুর খান।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, সরকারের দিকে তাকিয়ে থাকলে হবে না আমাদের প্রত্যেককে ভূমিকা নিতে হবে। আজকের সম্মেলনের মূল প্রতিবাদ্য ‘ দায়িত্বশীল নাগরিক সমৃদ্ধ দেশ’।-এই শ্লোগানকে অর্থবহ করতে প্রবাসীরা বিদেশের মাটিতে নিজেদের বিকাশের পাশাপাশি দেশের উন্নয়নেও ভূমিকা নিতে হবে। তিনি ব্যক্তিখাতের ভূমিকার কথা তুলে ধরেন তার বক্তব্যে।
অনুষ্ঠানে নির্ধারিত আলোচক কাতারের ইতিহাসবিদ ও কাতারের অমিরী দেওয়ানের বিশেষজ্ঞ ডা. হাবিবুর রহমানের বক্তব্যে কাতার বাংলাদেশের ইতিহাসের নানাদিক উঠে আসে। তিনি বলেন, আমরা কাতারে বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং করছি। বাংলাদেশের উচিত দেশে আমাদের মূল্যায়ন করা। তিনি কাতার প্রশাসনে বাংলাদেশের সম্পর্ক বৃদ্ধিতে ব্যাপক সফর বিনিময়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।
আরেক নির্ধারিত আলোচক কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল হাসান বলেন, বাংলাদেশীদের দেশে-বিদেশে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দায়িত্বশীল নাগরিক ও দেশের সমৃদ্ধিতে সকলের অংশগ্রহন নিশ্চিত করনে সঠিক নেতৃত্বে ওপরে তিনি গুরুত্বারোপ করেন।
আরেক আলোচক ব্যাংকার এরাবিয়ান এক্সচেঞ্জ এর মহা ব্যবস্থাপক নুরুল কবির বলেন, রেমিটেন্স ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে প্রবাসীদের বৈধ পথে অর্থ প্রেরণের সুফল পেতে সচেতনতা তৈরি করতে হবে।
সেকিল চৌধুরী বলেন, বিদেশের আইন কানুন মেনে সেসব দেশে প্রবাসীদের জীবন যাপনের বিকল্প নেই। তিনি বলেন, কাতার ২০৩০ সালকে কেন্দ্র করে বিশ্বের অন্যতম আধুনিক রাষ্ট্রে নিজেদেও প্রতিষ্ঠা করতে কাজ করে যাচ্ছে। কাতারের এই প্রক্রিয়ার সাথে একাত্ম হয়ে কাজ করার জন্য তিনি প্রবাসীদের আহবান জানান। পাশাপাশি বাংলাদেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখার জন্য অনুরোধ জানান।
অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কফিল উদ্দিন, ইউসুফ নুর, ইসমাইল মিয়া, তামিম রায়হান, আব্দুস সাত্তার, নজরুল ইসলাম, আমিনুল হক শাহজাহান সাজু ও আনোয়ার হোসেন আকন্দ।
অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও বৃটনের রানীর সম্মেলন উপলক্ষে দেয়া বাণী পাঠ করেন কাতার বাংলাদেশ স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যাপক গোলাম ফারুক সিদ্দিকী, নুরুন নাহার ও সানজিদ তাবাসসুম। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন কাতার প্রবাসী রোকেয়া খানম চৌধুরী