বার্কিংয়ে ‘বাংলা টাউন’র দ্বিতীয় শাখার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন

343

ওয়ানবাংলানিউজ: পূর্ব লন্ডনের বার্কিং থেমস রোডে বাংলা টাউন ক্যাশ এন্ড ক্যারির দ্বিতীয় শাখা আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে। গত ১ মে বুধবার দুপুরে বেলুন উড়িয়ে শাখার উদ্বোধন ঘোষণা করেন এইচএসবিসি ব্যাংকের রিজিওয়নাল ডাইরেক্টর মিঃ কিথ ও বাংলা টাউন ক্যাশ এন্ড ক্যারি গ্রুপ অব কোম্পানীর চেয়ারম্যান বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রফিক হায়দার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন এইচএসবিসি ব্যাংকের সিনিয়র কর্মকর্তা মিসেস অ্যান বেল ও মিস ডানিয়েল। বাংলা টাউন ক্যাশ এন্ড ক্যারির পরিচালকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সর্বজনাব ফয়জুল চৌধুরী, আব্দুল কালাম, জুনেদ কবির ও শামসুল হক। সাংবাদিকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাপ্তাহিক জনমত এর প্রধান সম্পাদক সৈয়দ নাহাস পাশা, সাপ্তাহিক দেশ সম্পাদক তাইসির মাহমুদ, টিভি ওয়ান এর সিনিয়র রিপোর্টার জাকির হোসেন কয়েস, এনটিভি ইউরোপের সিনিয়র রিপোর্টার ফরহাদ চৌধুরী ও ফটো সাংবাদিক খালেদ আহমদ।

উদ্বোধন শেষে রফিক হায়দার সাংবাদিকদের বলেন- পূর্ব লন্ডনের বার্কিং, ডেগেনহ্যাম ও রেইনহ্যামে বিশাল বাঙালি কমিউনিটি গড়ে ওঠেছে। প্রতিনিয়ত এখনকার কমিউনিটি বড় হচ্ছে। কিন্তু যেভাবে বাঙালির বসবাস বাড়ছে সেভাবে এই এলাকায় গ্রোসারী শপ কিংবা ক্যাশ এন্ড ক্যারী গড়ে ওঠেনি। এই এলাকার প্রবাসীদের দীর্ঘদিনের দাবী ছিলো বাংলা টাউনের একটি শাখা চালু করার। আজ এলাকাবাসীর সেই আশা পুরণ করতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। বাংলা টাউন দীর্ঘ ২৪ বছর ধরে কমিউনিটির সেবায় নিবেদিত। আমরা আশাবাদী এই এলাকার প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্যও আমরা আমাদের সেবার দ্বার উন্মুক্ত করতে পারবো। তিনি স্থানীয় এলাকাবাসীর আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করে বলেন, উদ্বোধন উপলক্ষে বিভিন্ন পণ্যসামগ্রীতে আকর্ষনীয় অফার চলছে। আমরা আশাবাদী স্থানীয় বাসিন্দারা এই অফার হাতছাড়া করবেন না।

উল্লেখ্য, উদ্বোধনী দিনেই বিপুল সংখ্যক কাস্টমারের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। অনেকেই শপিংয়ের জন্য টাওয়ার হ্যামলেটস থেকে ছুটে আসেন। স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই উদ্বোধনের খবর শোনে ছুটে আসেন এবং নতুন ক্যাশ এন্ড কারি চালু হওয়ায় আনন্দ প্রকাশ করেন।

বাংলা টাউনের অন্যতম ডাইরেক্টর ফয়জুল চৌধুরী জানান, ২১ থেমস রোডে (ওয়েসিস ব্যাংকুয়েটিং হলের বিপরীতে) প্রায় ২৮ হাজার স্কয়ার ফিট এলাকাজুড়ে নতুন শাখার অবস্থান। এখানে কাস্টমারদের সুবিধার্থে ৯০টি পার্কিং স্পেস রাখা হয়েছে। স্থানীয় এলাকাবাসী এখানে পারিবারিক পরিবেশে শপিং করার সুযোগ গ্রহণ করবে বলে আমরা আশাবাদী।