যুক্তরাজ্যে শিশুসেবার দাতব্য প্রকল্প নিয়ে ইসলাম বিদ্বেষী দলের অপকৌশল

203

যুক্তরাজ্যের উগ্র ডানপন্থী রাজনৈতিক দল UKIP বা ‘UK Independence Party’ দেশটির সরকার কর্তৃক নেয়া শিশু রক্ষামূলক একটি দাতব্য কর্মসূচিতে অনুপ্রবেশ করতে চায় যাতে করে তারা এর মাধ্যমে ইসলাম বিরোধী প্রোপাগান্ডা চালাতে পারে। দেশটির উগ্রপন্থা বিরোধী একটি প্রতিষ্ঠান ঠিক এরকমই তথ্য দিয়েছে।

যুক্তরাজ্য সরকারের একটি প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে, উগ্রপন্থী কিছু রাজনৈতিক নেতা শিশুদের উপর যৌন নির্যাতনের ঐতিহাসিক কিছু সমস্যায় তাদের আগ্রাসী মতবাদ ঢুকিয়ে দিতে চাচ্ছে যাতে করে শহর সমূহের বাসিন্দাদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

যুক্তরাজ্যের রকডেল শহরের শিশুদের যৌন নির্যাতন নিয়ে কাজ করা সংগঠন ‘Shatter Boys’ জানায়, লর্ড পিয়ার্সনের মত UKIP এর কিছু সিনিয়র নেতা সংগঠনটিকে কিছু শিল্পপতির মাধ্যমে অর্থের যোগান দেয়ার জন্য প্রস্তাব করেছে যাতে করে তারা তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে পারে।

‘Shatter Boys’ এর প্রতিষ্ঠাতা ড্যানিয়েল ওলস্টেনক্রোফ্ট বলেন, ‘তারা সাধারণত সেসব শিশুদের নিয়ে কাজ করতে চান, যারা যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে। আমি মনে করি এর মাধ্যমে তারা আসলে ইসলামের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে চায়।’

তিনি আরো বলেন, UKIP আসলে ‘শিশুদের উপর যৌন নির্যাতন নিয়ে কাজ করার মত এমন জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগাতে’ চায় যাতে করে তারা তাদের ইসলাম বিরোধী এজেন্ডাকে সুদূর প্রসারী করতে পারে।

লর্ড পিয়ার্সন যুক্তরাজ্যের হাউস অব লর্ডসের একটি ব্যক্তিগত ভোজের সময় এ প্রস্তাব দেন এবং এসময় এ্যলান ক্রেইগ নামের UKIP এর একজন মুখপাত্র বলেন, যেসব শিশু যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে তাদেরকে সহযোগিতা করার জন্য মুসলিমদের নিয়ে গঠিত দল সমূহ আসলে ‘আমাদের শিশুদের সম্পূর্ণ রূপে ধ্বংস করে দিচ্ছে।’

প্রসঙ্গত, UKIP এর নেতারা যুক্তরাজ্যে পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত একজন নাগরিক দ্বারা শিশু যৌন নির্যাতনের একটি বিষয়কে বার বার সামনে নিয়ে আসতে চায়। আর এ নেতৃত্বের পেছনে কলকাঠি নাড়ছেন দলটির নেতা ব্যাতেন, যিনি তার দলে ইসলাম বিরোধী রাজনৈতিক নেতা টমি রবিনসনকে অন্যতম উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিলেন।

যুক্তরাজ্য সরকারের ‘Crown Prosecution Service’ এর সাবেক শিশু যৌন নির্যাতন প্রতিরোধ বিভাগের প্রধান নাজির আফজাল বলেন, ‘দাতব্য কাজের মধ্য UKIP অনুপ্রবেশ করতে চায় যারা এর মাধ্যমে তাদের ভিন্ন এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে চায়।’

টমি রবিনসনের রাজনৈতিক মিত্র সাজিয়া হবস গত বছরের ডিসেম্বর মাসে মুসলিমদের নিয়ে গঠিত শিশু যৌন নির্যাতন রোধী সহায়তা প্রকল্প বিরোধী একটি হেল্প-লাইন ‘National Anti Grooming Alliance & Helpline (NAGAH)’ খুলেছিল এবং ওই অনুষ্ঠানে লর্ড পিয়ার্সন অংশ নিয়েছিলেন।

ওই অনুষ্ঠানে তিনি বলেছিলেন, ‘আপনি যদি এ বিষয়টি ঘাঁটাঘাঁটি করে দেখেন তবে আপনি অতিসত্ত্বর ইসলাম-ভীতিতে আক্রান্ত হবেন। এই সমস্যার মূলে ইসলাম জড়িত রয়েছে এবং এধরনের প্রায় সব সমস্যাই ইসলামের মধ্যে নিহিত রয়েছে। এ বিষয় নিয়ে আমাদের খোলাখুলি আলোচনা করা প্রয়োজন।’

NAGAH এর সহকারী প্রতিষ্ঠাতা এন্থনি উড বলেন, ‘পাকিস্তানি ধর্ষকদের দলটি সম্ভবত এ দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় অপরাধ সংঘটনকারী একটি দল।’

এ বিষয়ে বার্তা সংস্থা দ্যা গার্ডিয়ান তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা কোনো উগ্রপন্থী দল নই। আমরা একটি সামাজিক সংগঠন। আমরা যৌন নিপীড়নের শিকার অনেককে সহায়তা করেছি। আমরা শুধুমাত্র কোন একক বিষয়ের উপর আমাদের দৃষ্টি নিবন্ধ করিনি।’

‘Frontline Prevent’ নামের একটি দাতব্য সংস্থার একজন কর্মী বলেন, শিশু রক্ষার জন্য গঠিত দাতব্য কাজে উগ্র ডানপন্থী দল সমূহের জড়িত হওয়া আসলেই ‘উদ্বেগের বিষয়’ যা যুক্তরাজ্য জুড়ে একটি সমস্যা তৈরি করেছে।

সংগঠনটির আবদুল আহাদ নামের একজন কর্মকর্তা বলেন, উগ্র ডানপন্থী দলসমূহ এ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে ‘জনগণের আবেগ নিয়ে খেলছে।’

তিনি বলেন, ‘তারা তাদের উদ্দেশ্য হাসিল করার জন্য এরকম একটি কৌশল নিয়েছে। তারা ধীরে ধীরে সম্পর্ক গড়ে তুলে এবং বিশ্বাস অর্জন করে কিন্তু নিশ্চিতভাবেই শেষে তারা তাদের অনুসারীদের ডুবিয়ে মারবে।’

শিশু রক্ষা প্রকল্পে উগ্র ডানপন্থী দল সমূহের জড়িত হওয়া নিয়ে ২০১৮ সালের মার্চ মাসে বেশ কিছু লোকজন উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল এবং শিশু নির্যাতনের প্রতি পাঁচটি মামলার একটিতে উগ্র ডানপন্থী দলের হস্তক্ষেপ লক্ষ্য করা গিয়েছে।
সূত্র: দ্যাগার্ডিয়ান ডট কম, আরটিএনএন