ব্রেক্সিট নিয়ে করবিনের চিঠির জবাব দিলেন থেরেসা মে

605

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ব্রিটেনের প্রধান বিরোধীদল লেবারপার্টি প্রধান জেরেমি করবিনের চিঠির জবাব দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। গত বুধবার ব্রেক্সিটচুক্তির জন্য ৫টি দাবি জানিয়ে মে’কে চিঠি লেখেন করবিন। বিবিসি

থেরেসা মে তার চিঠিতে করবিনের ইইউ’র কাস্টমস ইউনিয়নে যুক্তরাজ্যের থাকার আহ্বানের বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানতে চান। এর পাশাপাশি, ব্রেক্সিট ইস্যু নিয়ে আলোচনায় লেবারপার্টির অংশগ্রহণকে স্বাগত জানান তিনি। এছাড়া, উত্তর আয়ারল্যান্ড সীমান্তে পূর্বপ্রতিশ্রুতিমাফিক কঠোর ব্যবস্থা এড়াতে আর কী কী বিকল্প পদ্ধতি নেওয়া যায় সেটি নিয়ে ভবিষ্যতে লেবারপার্টির সাথে আরও আলোচনার আশাবাদ ব্যক্ত করেন মে। তবে, করবিনের কোনও শর্তকেই নাকচ করেননি তিনি।

চিঠিতে মে বলেন, ‘এটি খুবই আনন্দের বিষয় যে আরেকটি নির্বাচন বা গণভোটের বদলে, ইইউ থেকে যুক্তরাজ্যের একটি চুক্তি নিয়ে বেরিয়ে যাওয়া এবং উত্তর আয়ারল্যান্ড সীমান্ত নিয়ে পূর্বপ্রতিশ্রুতি অনুযায়ী অতি দ্রুত একটি সমঝোতায় পৌঁছানো নিয়ে আমরা ঐকমত্যে পৌঁছাতে পেরেছি।’

যদিও এর আগে করবিন বরাবরই বলে এসেছেন, মে পার্লামেন্টে সম্মতির মধ্যদিয়ে কোনও চুক্তি করতে না পারলে অবশ্যই আরেকটি নির্বাচন হতে হবে। একইসাথে, তিনি ব্রেক্সিট নিয়ে আরেকটি গণভোটের জন্যেও তার নিজদলের কয়েকজন এমপি’র কাছ থেকে প্রবল চাপের মুখে পড়েন।

করবিন তার চিঠিতে বলেন, ‘লেবারপার্টি ইইউ’র সঙ্গে তাদের সমপরিমাণ বহিঃশুল্কসহ একটি স্থায়ী ও যুক্তরাজ্য-বিস্তৃত একটি কাস্টমস ইউনিয়নের দাবি জানায়।’

মে এবিষয়ে তার অসম্মতি জানিয়ে বলেন, ‘আমি ঠিক বুঝতে পারছি না কেন আপনি মনে করেন যে আমাদের নিজেদের চুক্তির চেয়ে ভবিষ্যৎ ইইউ বাণিজ্যচুক্তি বেশি কার্যকর হবে?’
তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে যে খসড়াটি করা হয়েছে সেখানে কাস্টমস ইউনিয়নের জন্য বেশকিছু সুবিধা রাখা হয়েছে। যেমন, করারোপ, ফি, চার্জ অথবা পণ্যের পরিমাণের বাধ্যবাধকতা এবং কোনধরণের চেকিং বাদ দেওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া, খসড়ায় যুক্তরাজ্যের স্বাধীন বাণিজ্যনীতি উন্নয়নের বিষয়টিকেও জোর দেওয়া হয়েছে। আমাদের নিজস্ব পণ্যের বাণিজ্যখাত সুরক্ষিত করাই এখন অন্যতম মধ্যস্ততার একটি বিষয়।’

খুব শীঘ্রই লেবারপার্টির সাথে একটি ফলপ্রসূ আলোচনা হবে বলে আশা করে চিঠিটি শেষ করেন মে। অন্যদিকে, লেবারপার্টির পক্ষ থেকে এখনও কিছু জানানো হয়নি।