সিলেটে হাসপাতালে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ ফেলে পালাল স্বামী

48

সিলেট সংবাদদাতা: সিলেটে হাসপাতালে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর লাশ ফেলে পালিয়েছে স্বামী। খবর পাওয়ার পর গৃহবধূর বাবার বাড়ির লোকজন হাসপাতালের হিমঘরে গিয়ে লাশের সন্ধান পায়। তবে ওখানে স্বামীর পক্ষের কাউকেই তারা পাননি।

এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। ওই গৃহবধূর নাম চম্পা রানী মালাকার (২৫)।

বুধবার চম্পার লাশের ময়নাতদন্ত শেষে তার বাবার বাড়ির লোকজনের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের হলেও রাত ৮টা পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি জালালাবাদ থানার পুলিশ।

চম্পা রানী মালাকার সিলেটের দক্ষিণ সুরমার সদরখলা গ্রামের মৃত বিমল মালাকারের মেয়ে ও সিলেট সদর উপজেলার জালালাবাদ থানার রাজারগাঁও হাটখোলা গ্রামের নকুল সূত্রধরের স্ত্রী।

গৃহবধূ চম্পার চাচী নিবু মালাকার থানায় দায়েরকৃত অভিযোগে উল্লেখ করেন, প্রায় ৯ মাস আগে সিলেট শহরতলীর রাজারগাঁও হাটখোলা গ্রামের মৃত রবীন্দ্র সূত্রধরের ছেলে নকুল সূত্রধরের সঙ্গে চম্পার বিয়ে হয়। এরপর থেকে নকুল যৌতুকের দাবিতে চম্পাকে নির্যাতন করে আসছিল।

চম্পার ভাই উজ্জ্বল মালাকার জানান, আগামী ২১ জানুয়ারি চম্পার ডেলিভারির কথা ছিল। কিন্তু বুধবার সকালে ফোন করে জানানো হয় চম্পা ওসমানী হাসপাতালে মারা গেছে। খবর পেয়ে চম্পার লাশ ওসমানী হাসপাতালের হিমঘরে দেখতে পান তারা।

তিনি জানান, তার বোন চম্পাকে হত্যা করে লাশ হাসপাতালে ফেলে স্বামী নকুল পালিয়েছে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের জালালাবাদ থানার ওসি শাহ হারুনুর রশীদ জানান, চম্পার মৃত্যু হত্যাকাণ্ড দাবি করে তার স্বজনরা থানায় অভিযোগ করেছেন। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।