১৬ বছরে ২৫ হাজার বৃটিশ-বাংলাদেশীকে হজ্জসেবা প্রদান করেছে আল কিবলাহ ট্রাভেলস

105

ওয়ানবাংলানিউজ: পূর্ব লন্ডনের অন্যতম প্রাচীন হজ্জ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান আল-ক্বিবলাহ ট্রাভেলস গৌরবের পথচলার ১৬ বছর উদযাপন করলো। এই প্রতিষ্ঠান গত ষোল বছরে ২৫ হাজারেরও বেশি বৃটিশ-বাংলাদেশীকে হজ্জসেবা প্রদান করেছে। ১৬ বছর পূর্তি ও ২০১৮ সালের হজ্ব পুনর্মিলনী উপলক্ষে ৯ ডিসেম্বর রোববার দুপুরে আয়োজন করা হয় এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠান।

পূর্ব লন্ডনের অ্যাট্রিয়াম ব্যানকুয়েটিং হলে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক পুরুষ-মহিলা হাজী ও বিশিষ্টজনের সমাবেশ ঘটে। অনুষ্ঠানে আল-ক্বিবলা ট্রাভেলসের পরিচালকবৃন্দ হাজীদের সর্বোত্তম সেবা নিশ্চিত করার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন। তাঁরা বলেন, আল-ক্বিবলাহ ট্রাভেলস হাজ্বীদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করতে আন্তরিকভাবে চেষ্টা করে থাকে। হিথ্রো এয়ারপোর্টে যাত্রীদের ফ্লাইট হওয়ার পর থেকে লন্ডনে ফিরে আসা পর্যন্ত হাজ্বীদের পাশে থেকে তাদেরকে সর্বোত্তম সেবা প্রদানের চেষ্টা করা হয়। আল-ক্বিবলাহ ট্রাভেস ব্যবসার চাইতে সেবাকে প্রধান্য দিয়ে থাকে। তাছাড়া প্রতি বছর লন্ডনে নিয়মিত হজ্ব পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান আয়োজনের মধ্য দিয়ে হাজ্বীদের কাছে থেকে ফিডব্যাক নিয়ে সেবার মান আরো উন্নত করার চেষ্টা করা হয়।

আল-ক্বিবলাহ ট্রাভেলস এর ম্যানেজিং ডাইরেক্টর আনওয়ার আলীর সভাপতিত্বে ও চ্যানেল এস এর হেড অব প্রোগ্রামস ফারহান মাসুদ খান এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট ইসলামিক চিন্তাবিদ ড. আবুল কালাম আজাদ, চ্যানেল এস এর ফাউন্ডার চেয়ারম্যান মাহি ফেরদৌস জলিল, মাওলানা আব্দুর রব, মাওলানা শায়খ আবু সাঈদ আনসারী ও আল কিবলার হেড অফ উমরা মাহবুব চৌধুরী ও হজ্জযাত্রীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন তাহের কামালী। শুরুতে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন সোলায়মান আলী। হামদ ও নাত পরিবেশন করে ম্যাসেজ কালচারাল গ্রুপ। এই গ্রুপে নেতৃত্ব দেন জনপ্রিয় কণ্ঠ শিল্পী নওশাদ মাহফুজ। অনুষ্ঠানে পাওয়ার প্রজেক্টরের মাধ্যমে ২০১৮ সালে হজের ভিডিও ফুটেজ দেখানো হয়।

অনুষ্ঠানে অতিথি বক্তারা বলেন, ১৬ বছর ধরে আল-ক্বিবলাহ ট্রাভেলস নিয়মিত হজ্ব সেবা প্রদান করে আসছে। এটা অনেক বড় সেবা। এটি হজ্বযাত্রীদের বিচিত্র অভিজ্ঞতা বর্ণনা ও পারস্পারিক মতবিনিময়ের একটি উপযুক্ত মাধ্যম। এ ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন নিঃসন্দেহে যেকোনও প্রতিষ্ঠানের সেবার মান বৃদ্ধি করে থাকে।

ড. আবুল কালাম আজাদ বলেন, আজকের হজ্জ পুনর্মিলনীতে এসে মনে হচ্ছে আমরা যেনো মিনায় তাবুর নগরীতে মিলিত হয়েছি। একটি সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বলেন, আমরা ২৭৬ জন হাজি নিয়ে একসঙ্গে একই তাবুর ভেতরে ছিলাম। অথচ আমাদের মধ্যে কোনো কথা কাটাকাটি কিংবা ঝগড়া-বিবাদ হয়নি। তিনি আল-ক্বিবলাহ ট্রাভেলসের হজ্জ সেবার প্রশংসা করতে গিয়ে বলেন, এই হজ্জ অ্যাজেন্ট থ্রিস্টার সার্ভিসের জন্য ফি নেয়, কিন্তু সেবা প্রদান করে ফাইভ স্টার।

চ্যানেল এস এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মাহি জলিল বলেন, হজ্জ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান আয়োজন সার্ভিসদাতা প্রতিষ্ঠানের সেবার মান উন্নত করার একটি উত্তম উপায়। আজকে যাঁরা উপস্থিত হয়েছেন তাঁরা যদি তাঁদের অভিযোগ অনুযোগগুলো এখানে তুলে ধরেন তাহলে আল ক্বিবলাহ পরবর্তী বছর তাদের সার্ভিস আরো ভালো করতে পারবে। তিনি বলেন, হজ্জকে অনেক আলেম নিজেদের ব্যবসা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। তাই হজ্বে যাওয়ার সময় দেখতে হবে কে প্রকৃত সেবার মানসিকতা নিয়ে সার্ভিস দিচ্ছেন। তিনি বলেন, আল ক্বিবলা ট্রাভেলসের সৎসাহস আছে বলেই তাঁরা হজ্জ থেকে ফিরে হাজীদের সম্মানে এ ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন করতে পেরেছেন। এটি প্রমাণ করে তাঁরা সন্তুষ্টজনক সেবা দিতে পারছেন।

শায়খ আবু সাঈদ আনসারী বলেন, আমাদের ভাগ্য কত ভালো। আমরা এ বছর হজ্জে যাওয়ার আগে এখানে হজ্জ তালিমে মিলিত হয়েছিলাম। আজ হজ্জ শেষে ফিরে এসে হজ্জ পুনর্মিলনীতে মিলিত হলাম। তিনি বলেন, মক্ক মদীনা থেকে ফিরে আসার পর হজ্জ কবুল হলো কিনা সেটা অনুধাবন করা একটি বড় বিষয়। তা বুঝা যায় নিজের চরিত্রের পরিবর্তন দেখে। হজ্জ থেকে ফেরার পর যদি আপনি নিজেকে খারাফ কাজ থেকে বিরত রাখতে সক্ষম হন তাহলেই ধরে নেবেন আপনার হজ্জ কবুল হয়েছে।

আল ক্বিবলা ট্রাভেলসের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর আনওয়ার আলী বলেন, হজ্জ একটি বিশাল ধর্মীয় অনুষ্ঠান। বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষ একই সময় একইসাথে হজ্জ পালন করে থাকেন। তাই কারো পক্ষে শতভাগ সন্তুষ্টজনক সেবা প্রদান করা সম্ভব নয়। আমরাও নিজেদেরকে শতভাগ সফল বলে দাবী করবো না। তবে আমরা শতভাগ সেবা দেয়ার চেষ্টা করে থাকি মাত্র। হজ্জের সময় মক্কা মদীনায় হাজীদের সাথী হয়ে পাশে থাকার চেষ্টা করি। তিনি বলেন, আমরা হজ্জে যাওয়ার প্রাক্কালে সকলকে বলে থাকি আপনাদের কোনো সমস্যা দেখা দিলে আমাদেরকে মক্কা মদীনায় তৎক্ষনাত জানাবেন। তাহলে আমরা সেখানেই আপনাদের সমস্যা সমাধান করতে পারবো। অনেকেই ঘটনাস্থলে সমস্যার কথা না বলে লন্ডন ফেরার পর অভিযোগ করেন। তখন আমাদের করার কিছু থাকেনা। তবে লন্ডন ফেরার পরও অভিযোগ পেলে আমরা তার সন্তুষ্টজনক সমাধানের চেষ্টা করে থাকি। তবে তিনি তাদের জানার মধ্যে অথবা অজান্তে কোনো ভুল-ত্রুুটি হয়ে থাকলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ জানান। তিনি তাঁদের নিয়মিত হজ্জ গাইড মাওলানা আবুল কালাম আজাদ, আবু সাঈদ আনসারী ও আব্দুর রবকে তাদের হার্ড ওয়ার্কের জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আপনাদের অংশগ্রহণ আল-ক্বিবলার সার্ভিসকে আরো সমৃদ্ধ করেছে।

ডাইরেক্টর আলহাজ্ব খান বলেন, আল-ক্বিবলাহ ট্রাভেলসের যাত্রা শুরু হয় ২০০২ সালে। কিন্তু আমরা হজ্জ পুনর্মিলনী করে আসছি বিগত দশ বছর যাবত। এই হজ্জ পুনর্মিলনী আয়োজনের মধ্য দিয়ে প্রতি বছরই সেবার মান উন্নত করতে পারছি। কারণ হাজীদের কাছ থেকে আমরা ফিডব্যাক পেয়ে থাকি। সে আলোকেই পরবর্তী বছর সার্ভিস উন্নত করার চেষ্টা করি। তিনি বলেন, হজ্জ একটি বড় ধর্মীয় সেবা। আমরা শুধু ব্যবসার কথা চিন্তা করিনা। ধর্মীয় সেবার কথা মাথায় নিয়েই কাজ করি। মানুষ হিসেবে ভুলত্রুটি হওয়া খুবই স্বাভাবিক। তাই আমরা আশাবাদী থাকবো ছোট খাটো ভুলগুলো হাজিরা ক্ষমা-সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। উল্লেখ্য, ২০০২ সালে পূর্ব লন্ডনের ব্রিকলেনে যাত্রা শুরু করে সৌদি হজ্ব মন্ত্রণালয় অনুমোদিত হজ্ব অ্যাজেন্সি আল-ক্বিবলাহ ট্রাভেলস। বর্তমানে প্রতি বছর ৫০০ হজ্বযাত্রী নিয়ে যাওয়ার লাইসেসিং ক্ষমতা রয়েছে এই ট্রাভেলস অ্যাজেন্সির। তাছাড়া প্রতি বছর চারটি কাফেলায় আরো প্রায় ১ হাজার মানুষ ওমরা করে থাকেন। আগামীতে তাঁরা তাদের ক্যাপাসিটি বৃদ্ধি করে ৭শ করার চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন আল ক্বিবলার ম্যানেজিং ডাইরেক্টর আনোয়ার আলী।