এই মামলার আসামি ছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রীও: খালেদা জিয়া

60

ঢাকা সংবাদদাতা: আদালতে শুধু আমি একা কেন, এ মামলাতে তো বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও আসামি ছিলেন, তাহলে তিনি কোথায়? আমি শুধু ধারাবাহিকতা রক্ষায় চুক্তিতে স্বাক্ষর করি। আদালতে এভাবেই বললেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া।

বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থাপিত ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ মাহমুদুল কবীরের আদালতে নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানিতে এসব কথা বলেন তিনি।

খালেদা জিয়া আদালতকে বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচার কেন হচ্ছে না, উনাকে কেন আদালতে নেওয়া হচ্ছে না। খালেদা জিয়ার প্রশ্নের জবাবে আদালত বলেন, তিনি এখন এই মামলার পার্ট না। তাই উনি আসেননি।

পরে মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল সাংবাদিকদের বলেন,উচ্চতর আদালত এ মামলা থেকে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকে অব্যাহতি দিয়েছেন। তাই তিনি এখন আর এ মামলার পার্ট না। কিন্তু সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াও মামলাটি খারিজের চেষ্টা করেন। কিন্তু মামলার মেরিট থাকায় হাইকোর্ট তা বিচারিক আদালতে পাঠান। পরে দুই পক্ষের শুনানি শেষে আগামী ১৪ নভেম্বর এ মামলার পরবর্তী তারিখ ঠিক করেন আদালত।

এর আগে, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে অস্থায়ীভাবে স্থাপিত ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ মাহমুদুল কবীরের আদালতে নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানি শুরু হয়। এদিন খালেদা জিয়াকে হাসপাতাল থেকে সরাসরি ওই মামলার শুনানিতে হাজির করা হয়।

শুনানিতে খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ শারীরিকভাবে অসুস্থ জানিয়ে শুনানির তারিখ পেছানোর জন্য আদালতকে অনুরোধ জানান। কিন্তু এর বিরোধিতা করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল। পরে মামলার আংশিক যুক্তিতর্ক করেন মওদুদ আহমদ।

কানাডার কোম্পানি নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতিসাধন ও দুর্নীতির অভিযোগে খালেদা জিয়াসহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে দুদকের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাঁও থানায় মামলাটি করেন।

২০০৮ সালের ৫ মে এ মামলায় খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন দুদকের সহকারী পরিচালক এস এম সাহেদুর রহমান। অভিযোগপত্রে প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার রাষ্ট্রীয় ক্ষতির অভিযোগ আনা হয়।

গেল ৬ অক্টোবর কারাগার থেকে চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়। ৩০ অক্টোবর খালেদা জিয়ার সাজা পাঁচ বছর বাড়িয়ে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেন হাইকোর্ট।
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় নিম্ন আদালতে এর আগে গত ৮ ফেব্রুয়ারি তাকে ৫ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছিলেন।