ইংল্যান্ডে ফার্লো স্কিমে প্রায় ৫০০ হাজার পাউন্ডের জালিয়াতি: এক ব্যক্তি আটক

6436

ওয়ানবাংলানিউজ: করোনাভাইরাসের কারনে লকডাউন ঘোষণার পর ব্রিটেনে বন্ধ হওয়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং অফিস স্টাফদের বেতনের ৮০ শতাংশ সরকার দিয়ে আসছে। ফার্লো নামক এই স্কিমের মাধ্যমে উপকৃত হয়েছেন ব্রিটেনের লাখ লাখ কর্মজীবি মানুষ। অত্যান্ত সহজ নিয়মে সরকার প্রদত্ত এই স্কিমেও জালিয়াতি হচ্ছে। ইংল্যান্ডের পশ্চিম মিডল্যান্সের সোহিহুল এলাকার এক ব্যক্তিকে ৪৯৫০০০ পাউন্ড জালিয়াতি করার অভিযোগে আটক করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস জব রিটেনশন স্কিম (সিজেআরএস) প্রথম কোন ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।
এইচএম রেভিনিউ এন্ড কাস্টমস (এইচআরআরসি) জানিয়েছে আটককৃত ৫৫ বছর বয়সী ব্যবসায়িক অ্যাকাউন্ট এবং কম্পিউটার জব্দ করা হয়েছে।

এইচএমআরসি জানিয়েছে এই প্রকল্পের মাধ্যমে মোট ২৭ বিলিয়ন পাউন্ড দাবী করেছেন ব্যবসায়ীরা। ফার্লো স্কিমটি চালু করা হয়েছিল যাতে করোনার প্রাদুভার্বের কারনে ছুটিতে যাওয়া মানুষ আর্থিক সহযোগিতা পান।

এইচএমআরসি ফ্রড ইনভেস্টিগেশন সার্ভিসের রিচার্ড লাস জানিয়েছেন, করোনাভাইরাস জব রিটেনশন স্কিম চাকুরি সুরক্ষার জন্য সম্মিলিত জাতীয় প্রচেস্টার অংশ।

বেশিরভাগ নিয়োগকর্তা সিজেআরএসকে দায়িত্বশীলতার সাথে ব্যবহার করেছেন। তবে আমরা এই প্রকল্পটির অপব্যবহার কারিদের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে দ্বিধাবোধ করবনা।

এইচএমআরসি আরও জানিয়েছে, মিডল্যান্ডস জুড়ে পৃথক অভিযানে আরও আট ব্যক্তিকে সন্দেহজনক আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মিলিয়ন মিলিয়ন পাউন্ড ট্যাক্স জালিয়াতি এবং অর্থ পাচারের অভিযোগ রয়েছে।

পৃথক সংবাদ: ব্রিটেনে গ্রান্ট ও ফার্লো স্কিমে ব্যাপক প্রতারণার অভিযোগ, অর্থ দন্ডের বিধান রেখে আসছে নতুন আইন