খিদের জ্বালায় মরা কুকুরের মাংস খাচ্ছে মানুষ

738

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনাভাইরাস ঠেকাতে গোটা ভারতজুড়ে চলছে লকডাউন। আর লাকডাউনের ফলে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন দেশের দরিদ্র মানুষগুলো, বিশেষ করে যারা দিনে এনে দিনে খান যারা। এ অবস্থায় বাড়িতে ফিরতে কয়েক হাজার কিলোমিটার পথ হেঁটে চলেছেন পরযায়ী শ্রমিকরা। সড়ক দুর্ঘটনা বা ক্লান্তিতে তাদের অনেকে রাস্তায় পড়েই মারা যাচ্ছেন।

এসব দরিদ্র আর অসহায় মানুষগুলোর মৃত্যু নিয়েও থেমে নেই রাজনীতি। কিন্তু এতে তাদের অবস্থার কোনও পরিবর্তন ঘটেনি। এবার সামনে এলো আরও ভয়ঙ্কর চিত্র। খিদের জ্বালা মেটাতে দিনে দুপুরে রাস্তায় বসে মরা কুকুরের মাংস খাচ্ছে এক লোক! এই ঘটনার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে রাজস্থান রাজ্যের জয়পুর শহরের কাছে, দিল্লি-জয়পুর হাইওয়ের উপরে। ভিডিয়োটিতে দেখা যাচ্ছে, হাইওয়ের উপরে বসে আছেন এক ব্যক্তি। তার সামনে পড়ে রয়েছে একটি মরা কুকুর। সেই মৃত কুকুরের গা থেকে মাংস ছিঁড়ে খাচ্ছেন ওেই লোক।

বেশ কিছুক্ষণ ধরেই তিনি কুকুরের কাঁচা মাংস গলাধঃকরণ করছিলেন। তবে একটু পর একজন গাড়ি থেকে নেমে এসে তাকে একটি খাবারের প্যাকেট ও পানির বোতল দিয়ে যান।

এই ভিডিও সামনে আসতেই দেশজুড়ে ফের শোরগোল পড়ে গিয়েছে। অভিযোগ উঠছে, দেশের পরিযায়ী শ্রমিক আরও পরিষ্কার করে বলতে গেলে, এসব দরিদ্র মানুষের জন্য কোনও ব্যস্থা না করেই লকডাউন করেছে মোদি সরকার। যার ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে এসব অসহায় মানুষগুলো।

সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশে না খেতে পেয়ে মারা গেছেন ৬০ বছর বয়সী এক পরিযায়ী শ্রমিক।

এর আগে ক্ষুধার জ্বালা মেটাতে গাছের পাতা ছিঁড়ে খেয়েছিলেন কলকাতায় আটকে পড়া এক পরযায়ী শ্রমিক। দিন কয়েক আগেই ওই শ্রমিকের গাছের পাতা ছিঁড়ে খাওয়ার ছবি প্রকাশিত হয়েছে ভারতের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে।

ভারতে লকডাউনের জেরে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন এসব পরযায়ী শ্রমিকরা। তাদের ঘরে ফেরাতে তেমন কোনও উদ্যোগ নেয়নি সরকার। এ নিয়ে পরস্পরকে দোষারোপ করে চলেছে দেশটির কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারগুলো।